107th Prize Bond Draw Result 2022 – Bangladesh Bank 100 Taka Prize Bond Draw

On 31st January 2022, the Bangladesh Bank will be published 106th prize bond draw result 2022 on the official website www.bb.org.bd. In the initiative of Bangladesh Bank, the Prize Bond Draw 2022 program will be held in the Dhaka Commissioner’s conference room. After that, the prize bond draw, the result has published on the Bangladesh Bank’s website www.bb.org.bd. Last 105st Prize bond draw’s 1st prize of 6 lakh taka owned number was 0121841 and prize bond Draw of the 67 series of this lottery number 2nd prize of 3 lakh 25 thousand taka owned number was 0469955 of the 67 series of this lottery number. Apart from this, the details of prize bond result 2022 can be found on myallresult.com.

Apart from the National Savings Directorate’s website, you can also see and download the Lottery Draw Result 2022.

When will the 107th prize bond be drawn?

The 107th 100 taka prize bond draw will be held on April 30 at the office of the Divisional Commissioner of Dhaka Division. You will get the results of the prize bond from here in due course.

Bangladesh Bank 106th prize bond draw result 2022

Prize Bond Draw 2022

105th Prize bond Draw Result 2022 – www.bb.org.bd prize bond result

105th Prize Bond Draw

Bangladesh bank prize bond Draw 2022

1st prize T: 6,00,000 / = | 0121841 |
2nd prize T: 3,25,000 / = 0650775
3rd prize: Rs. 1,00,000 / – each; Mate 2. 0330492. 0728408
4th prize: Rs. 50,000 / – each; Mate 2. | 0619529 | 0894420

| 5th prize: Rs. 10,000 / = each; Mate 40.
০১৮৫৫৮০ ০৩৪২৯৩৩ ০৬২২২২২ ০২১৮৩৯৭ ০৩৬৪১৯৯ ০৬২৫০০৫ ০২৫৪২৬৯। ০৪৭৭৬৬৩ ০৬২৫৭৪৭ ০২৬০৩২৮ ০৫০৩৬২৬ ০৬৭৪০০৩ ০২৬৯০২৫ ০৫১৪৯৬৫ ০৬৭৮৯৮২ | ০২৭১২৬১ ০৫৫৯৬৬৩ ০৬৮৮৮৯৫ ০২৭১৩৭২. ০৫৮৭৬০৬ ০৭১২১৬১ ০৩২৯৮৭৬ ০৫৯৩২৭৮ ০৭২৩৩৩৪ ০৭৫০০৮৯ ০৭৫২০১১ ০৭৮৮৮৫০ ০৮২৮৫১৪ ০৮৪৫৮৫২ ০৮৫০৩৭৭ ০৯১১৬০৯ ০৯২০২৪৯ ০০০৯৬৪৬ ০০২৯৪৭০ ০০৩৭৬০২ ০০৫৮৩৭১ ০১২৮৫৫৯ | ০১৩০২০৯ ০১৩৮৪৪০ ০১৫৯৪৬৪

Result of 108th ‘Draw’ of Bangladesh Prize Bond worth 100 / – (One Hundred) তাকা. Today, on 17th Magh, 1426 BS / 31st January, 2022 AD, the 108th ‘Draw’ of Bangladesh Prize Bond worth Rs. This ‘draw’ is conducted in a single general system (i.e. the same number for each series) and there are currently six (sixty seven) series worth Rs.কক, কখ, কগ, কঘ, কঙ, কচ, কছ, কজ, কঝ, কঞ, কট, কঠ, কড, কঢ, কথ, কদ, কন, কপ, কফ, কব, কম, কল, কশ, কষ, কস, কহ, খক, খখ, খগ, খঘ, খঙ, খচ, খছ, খজ, খঝ, খঞ, খট, খঠ, খড, খঢ, খথ, খদ, খন, খপ, খফ, খব, খম, খল, খশ, খষ, খস, খহ, গক, খ, গগ, গঘ, গঙ, গচ, গছ, গজ, গঝ, গঞ, গট, গঠ, গড, গঢ় এবং গথ and Goth are included in this ‘draw’. Forty-six (forty-six) common numbers included in the appropriate series are declared eligible for the prize and the following number of prize bonds are generally considered eligible for the prize for each series. For example: the number of prizebonds declared for the first prize shall be deemed eligible for the first prize of each series mentioned in the prizebond. Similarly, the numbers announced for the 2nd, 3rd, 4th and 5th prizes are also eligible for the prizes in each series according to their value. Note that all the price bonds that have been sold 60 (sixty) days prior to the scheduled date of the draw (excluding the date of sale and excluding the date of the draw) will come under this ‘draw’. In fact, as per the instructions of Section 55 of the Income-tax Ordinance, 1974, from July 1, 1999, there is a provision to deduct tax at source at the rate of 20% of the prize bond money.

List of 1st to 5th prize: bd prize bond draw

1st prize (Total 67 Prize) : Tk 6 lakh – 1 prize for each series

2nd prize (Total 67 Prize) : 3 lakhs and 25 thousand taka – 1 prize for each series

3rd prize (Total 134 Prize): One lakh taka – 2 prize for each series

4th prize (Total 134 Prize) : 50 thousand taka – 2 prize for each series

5th prize (Total 2680 Prize): 10 thousand taka – 40 Prize for each series

Total 3082 (three thousand eighty) Prize Bond Rewords

46 Rewords for each series

What is the prize bond?

To increase the tendency of saving money, the National Savings Division announced a prize bond called “Bangladesh prize bond” in 1972. It’s also called a lottery bond. Any person can buy as many lottery tickets as they wish. This lottery ticket is not a lottery ticket for the other lottery-like Jodi Liga jay. And anyone can easily exchange money at any time by his ticket. You can also buy prize bonds from Bangladesh Bank, Commercial Bank and Post Office and sell it if you like.

The results of Bangladesh Bank Prizebond draws are held every year on January 31, 30th April, 30th July, and 31st October. Each series has 1million prize bonds and there are a total of 53 series. If a number of a series win prize money, then the same number of each series will get those rewards.

98th prize bond draw result pdf Download

How to Check PrizeBond Lottery Draw Result by online

প্রাইজ বন্ড রেজাল্ট - Bangladesh Bank PrizeBond Lottery Draw Result

Check the 99th PrizeBond Lottery Draw Result From Here

If you are searching for the latest prize bond draw result then you may check it from below. also see the video to know how to check prize bond draw result 2022.

নিচের ভিডিও থেকে দেখে নিন কিভাবে সহজে প্রাইজ বন্ড ড্র রেজাল্ট 2022 দেখবেন

How to collect rewards money – prize bond draw result 100

If you are a fortune winner of a lottery winner, you will have to inform the bank and the bank will give you a form. After completing the form, you get the reward money within 2 months. But the government will have to pay 20% tax on your reward money.

The History of Prize Bond

In 1956 Priyomand was first introduced in Ireland. In Bangladesh, the first prize bond of Tk 10 and 50 was introduced in 1974. After the launch of prize Bond of Tk 100 in 1995, the valuation of 10 and 50 Takas was withdrawn.

The Draw of prize bond of Tk 100 is held four times a year: 31 January, 30 April, 31 July, and 31 October. A committee comprising the chairman of the Dhaka Divisional Commissioner is conducting the draw ceremony. But after two months of purchase, the prize comes under the drawer.

The award money can be claimed for two years of the draw ceremony. If anyone does not claim it, then the money of the reward will be returned to the government treasury.

After winning the application, in the prescribed form with the original bond, the payment order is given to the winner within two months. But a tax on the prize money is 20 percent deducted by the government.

By selling prize bonds, the government directly receives loans from the public. In India and Pakistan, there are eight types of prize bonds worth 100 to 40 thousand rupees, but for 20 years in Bangladesh, there are only 100 takas worth prize money.
There are 44 million pieces of price bonds in the country and the Bangladesh Bank has done all the work beyond of Government of Bangladesh.

For any other educational information, Result News, Jobs Circular and as well as all type of useful information you can visit our site . Also, we provide all updates of national Prize Bond Draw information and international prize bond draw information from our website. So please continue to visit our site for more Prize Bond draw Update updates.

If not taken within two years, the prize money will expire

A large section of society believes in fate. A savings program in the form of a prize bond has been running in the country since 1974 for people who have faith in fortune. It was introduced to increase savings among people from all walks of life. The government-run savings program is called the ‘Bangladesh Prize Bond’. By selling it, the government borrows directly from the people. Prize bonds are basically a financial product of the Department of National Savings. However, Bangladesh Bank takes care of everything.

Neighboring India and Pakistan have six types of prize bonds worth 100 to 40 thousand rupees, but in Bangladesh, for 23 years there is only one price bond worth 6100 rupees. In the beginning, there was a price bond of 10 rupees in the country. Price bonds worth Rs 50 were introduced in the eighties of the last century and Rs 100 in the nineties. That’s all there is to it.

The draw of this prize bond worth 100 rupees is held four times a year. The dates are 31st January, 30th April, 31st July, and 31st October. A committee headed by the Divisional Commissioner of Dhaka conducts the draw. However, two months after the purchase, the price bond comes underdraw. Newly purchased prize bonds, as well as previously purchased price bonds, are also covered by the draw.

The prize bond has 46 prizes for each series, valued at Rs 18.25 lakh. The first prize is 1 6 lakh rupees, the second prize is 1 3 lakh 25 thousand rupees, the third prize is 2 1 lakh rupees, the fourth prize is 2 50 thousand rupees and the fifth prize is 40 thousand rupees.

Officials at the central bank and the savings department said that although many people bought prize bonds with a keen interest in reversing their fortunes, many were too lazy to match the draw results. Many people do not match the number of prize bonds due to negligence. Many can’t even get the prize money, although the government has the opportunity to claim the prize money for two years of the draw ceremony. If none of these demands, the prize money is laundered and returned to the government treasury.

After the draw, the winner is given a pay-order within a maximum of two months if he applies in the prescribed form along with the original bond. The government has to pay a 20 percent withholding tax on the prize money. According to the central bank, there are about 50 million price bonds in the country.

This prize bond is also known as prize bond and lottery bond. Some people call it an interest-free bond as it has no interest. Money can be refunded at any time by breaking the prize bond. Both redemption and purchase can be done from all-cash offices of Bangladesh Bank, any commercial bank, and the post office.

Meanwhile, it has been reported that a vicious circle is working on the prize bond award. In December 2019, the then Secretary of the Anti-Corruption Commission (ACC) Muhammad Dilwar Bakht wrote a letter to the Governor of Bangladesh Bank. In the letter, he said that it is often seen that the winner of the prize bond lottery sells the prize money to a class of dishonest people without accepting the prize money. In this way, the person got the opportunity to legalize illegal money. Such illegal activities need to be stopped.

He advised the awardees to apply in writing to the nearest bank or post office along with their national identity card within 72 hours of the prize bond draw to stop such activities. The rule is the same as before.

[box] If you find the following topics like- 100 prize bond draw 2022, 100 taka prize bond draw 2022, 100 takar prize bond draw 2022, 100 tk prize bond draw 2022, 106th prize bond draw 2022,105th prize bond draw 2022,105 prize bond draw 2022 Bangladesh,106th prize bond draw result 2022 Bangladesh bank, Bangladesh bank prize bond draw result, last prize bond draw 2022, latest prize bond draw 2022, prize bond draw 2022 April, prize bond draw July 2022, prize bond draw October 2022, prize bond lottery, prizebond draw, www.bb.org.bd prize bond result, how to buy prize bond in Bangladesh, What is Prize Bond. Then you may find your Result from here. [/box]

Prize bond published date :

Last 8 Prizebond Draw

97th Draw (31th October 2019)

96th Draw (31th July 2019)
95th Draw (30th April 2019)
94rd Draw (31st January 2019)
93rd Draw (31st October 2018)
92nd Draw (31st July 2018)
91st Draw (30th April 2018)
90th Draw (31st January 2018)

 

5 thoughts on “107th Prize Bond Draw Result 2022 – Bangladesh Bank 100 Taka Prize Bond Draw”

  1. প্রাইজবন্ড ড্র রেজাল্ট মিলাতে প্রাচুর্য্য.কম
    প্রাইজ বন্ডের বিষয়ে দেশের মানুষের মনে একটি ধারনা বদ্ধমূল হয়ে গিয়েছে যে কেহ কোনদিন প্রাইজ বন্ডের পুরুস্কার জিতেনি বা কারো কোন নাম্বার ড্র’তে উঠে নাই।

    কিন্তু সত্যি কথা বলতে কি ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশে প্রাইজবন্ড চালু হবার পর থেকে তিনমাস পর পর নিয়মিতই ড্র অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দেশে বর্তমানে ৪ কোটি ৪০ লাখ পিস প্রাইজবন্ড রয়েছে। বছরে চার বার প্রাইজবন্ডের ড্র অনুষ্ঠিত হলেও যাদের কাছে প্রাইজবন্ড তারা ড্র’র রেজাল্ট মিলিয়ে দেখে না। এই মিলিয়ে না দেখার পেছনে কারন হলো সচেতনার অভার। বছরে কখন কখন যে ড্র হয় এই খবর তাদের কাছে থাকে না, বা থাকলেও ড্র’র রেজাল্ট সংগ্রহ করতে পারে না অথবা ড’র রেজাল্টের সাথে নিজের প্রাইজবন্ডের নাম্বার মিলিয়ে দেখা কষ্ঠসাধ্য তাই মিলিয়ে দেখে না। তাই অনেকেই তাদের প্রাইজবন্ডের সাথে ড্র’র রেজাল্ট মিলে যাওয়া সত্তেও নম্বর মিলিয়ে নিতে গাফিলতি করেন। ফলে কাক্সিক্ষতই পুরস্কারও মিলে না।

    তাই আপনার কাছে প্রাইজ বন্ডে ইনভেষ্ট করার মতো প্রয়োজনীয় অর্থ ও মানষিকতা সবই আছে কিন্তু ড্র এর রেজাল্ট মিলানোর ঝামেলায় আপনি প্রাইজ বন্ড কেনায় উৎসাহ বোধ করেন না। গত কয়েক বছরে প্রাইজবন্ড ড্রয়ের পুরস্কার বিশ্লেষণে দেখা গেছে পুরস্কার দাবী করেন মাত্র ৫০% বিজয়ী, ফলে অবিলিকৃত পুরুস্কারের অর্থ সরকারের কোষাকারে ফেরত যায়। নিয়মিত প্রাইজবন্ডের ড্র অনুষ্ঠিত হলেও অনেকেই নম্বর মিলিয়ে নিতে গাফিলতি করেন। ফলে পুরস্কার থেকে বঞ্চিত হন তারা।

    Prachurjaবর্তমান সরকারের ডিজিটাল স্রোতের সাথে তাল মিলিয়ে এবং সরকারের এই প্রাইজবন্ড পরিসেবাকে জনপ্রিয় করতে অথবা জনগনের মনে যে ভান্ত ধারনা আছে সেটা দুর করতে প্রাচুর্য্য.কম নিয়ে এসছে একটি ভলেন্টারী সেবা।

    প্রাচুর্য্য.কম প্রাইজবন্ড মিলানোর সেই ঝামেলাকে অত্যন্ত সহজ ভাবে সমাধান করেছে। আপনার প্রাইজবন্ডের নাম্বার এই ওয়েবসাইটে দিয়ে রাখলে বিগত নতুন ড্র সহ বিগত দুই বছরের যে কোন ড্রয়ের ফলাফলের সাথে আপনার কোন নম্বর বিজয়ী হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা আপনাকে এস.এম.এস ও ইমেইল এর মাধ্যমে তা জানিয়ে দিবে।

    রেজিষ্ট্রিশন পদ্ধতিঃ প্রথমে আপনাকে আপনার ব্যাবহৃত ফোন নম্বর ও ই-মেইল এড্রেস দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করতে হয়।

    কিভাবে প্রাইজ বন্ডের নাম্বার এনলিষ্ট করবেন??

    আপনি Prachurja.com এই ওয়েব সাইটে লগইন করলে বাম দিকের প্যানেলে মাই ড্যাশবোর্ডে Add New Prizebond লেখাটি দেখতে পাবেন, সেখানে ক্লিক করলে প্রাইজবন্ড এন্ট্রি ফরম ওপেন হবে। সেখানে দুইটি অপশন আছে

    Single Number Entry: প্রাইজ বন্ডের নাম্বার গুলি যদি এক সিরিয়ালে না থাকে তখন এই অপশন ব্যাবহার করতে হয়।

    Multiple Numbers Entry: প্রাইজ বন্ডের নাম্বার গুলি যদি এক সিরিয়ালে থাকে তখন এই অপশন ব্যাবহার করতে হয়।

    প্রাইজবন্ডের নাম্বার এন্ট্রির পর বিগত দুই বছরের যে কোন ড্র’র সাথে আপনার কোন নাম্বার মিলে যায় তাহলে আপনি আপনার ড্যাশবোর্ডে তা দেখতে পাবেন।

    ১০০ টাকা মূল্যমানের প্রাইজবন্ডের ড্র অনুষ্ঠিত হয় বছরে চারবার: ৩১ জানুয়ারি, ৩০ এপ্রিল, ৩১ জুলাই ও ৩১ অক্টোবর। ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারকে চেয়ারম্যান করে গঠিত একটি কমিটি ড্র অনুষ্ঠান করে থাকে। তবে কেনার দুই মাস পার হওয়ার পর প্রাইজবন্ড ড্রর আওতায় আসে।

    ড্র অনুষ্ঠানের দুই বছর পর্যন্ত পুরস্কারের টাকা দাবি করা যায়। এর মধ্যে কেউ দাবি না করলে পুরস্কারের অর্থ তামাদি হয়ে সরকারি কোষাগারে ফেরত যায়।

    প্রাইজবন্ডে প্রতি সিরিজের জন্য ৪৬টি পুরস্কার রয়েছে, যার মূল্যমান ১৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা। প্রথম পুরস্কার একটি ৬ লাখ টাকা, দ্বিতীয় পুরস্কার একটি ৩ লাখ ২৫ হাজার টাকা, তৃতীয় পুরস্কার দুটি ১ লাখ টাকা করে, চতুর্থ পুরস্কার দুটি ৫০ হাজার টাকা করে এবং পঞ্চম পুরস্কার ৪০টি ১০ হাজার টাকা করে।

    জেতার পর মূল বন্ডসহ নির্ধারিত ফরমে আবেদন করলে সর্বোচ্চ দুই মাসের মধ্যে বিজয়ীকে পে-অর্ডার দেওয়া হয়। তবে পুরস্কারের টাকার ওপর কর দিতে হয় ২০ শতাংশ।

    প্রাইজবন্ড বিক্রি করে সরকার সরাসরি জনগণের কাছ থেকে ঋণ নেয়। ভারত ও পাকিস্তানে ১০০ থেকে ৪০ হাজার রুপি মূল্যমানের আট ধরনের প্রাইজবন্ড থাকলেও বাংলাদেশে ২০ বছর ধরেই রয়েছে শুধু ১০০ টাকা মূল্যমানের প্রাইজবন্ড।

    বর্তমানে ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ড্র অনুষ্ঠিত হয়। একক সাধারণ পদ্ধতিতে (প্রতিটি সিরিজের জন্য একই নম্বর) ড্র পরিচালিত হয়। পুরস্কার পাওয়ার পর বাংলাদেশ ব্যাংক বা যে কোন তফসিলী ব্যাংক বা ডাকঘরে নির্ধারিত ফরমে পুরস্কার দাবি করতে হয়। জেতার দুই বছর পর্যন্ত পুরস্কার দাবি করার সুযোগ থাকে। দুই বছরের মধ্যে পুরস্কার দাবি না করলে তামাদি হয়ে সরকারের কোষাগারে জমা হয়ে যায়। দাবি করার দুই মাসের মধ্যে পুরস্কার দিয়ে থাকে কর্তৃপক্ষ। প্রাপকের ব্যাংক হিসাবে পে-অর্ডারের মাধ্যমে পুরস্কারের অর্থ দেয়া হয়।

    প্রাইজবন্ডের পুরস্কার পরিশোধ পদ্ধতিতে পরিবর্তনঃ

    প্রাইজবন্ডের পুরস্কার পরিশোধ পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখন থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সব অফিসের মাধ্যমেই প্রাইজবন্ডের পুরস্কারের অর্থ পরিশোধ করা হবে।

    প্রাইজবন্ডের পুরস্কারের অর্থ পরিশোধ শীর্ষক সার্কুলারে বলা হয়েছে, প্রাইজবন্ডের পুরস্কার বিজয়ীদের দাবি করা পুরস্কারের অর্থ স্বল্প সময়ে এবং সহজে তাদের ব্যাংক হিসাবে দেওয়ার লক্ষ্যে প্রাইজবন্ডের পুরস্কার পরিশোধ পদ্ধতি বাংলাদেশ ব্যাংকের সব অফিসের মধ্যে বিকেন্দ্রীকরণ করা হয়েছে।

    অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংকের সকল অফিসের মাধ্যমেই প্রাইজবন্ডের পুরস্কারের অর্থ পরিশোধ করা হবে।

    এ পরিপ্রেক্ষিতে প্রাইজবন্ডের পুরস্কার বিজয়ীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত পুরস্কারের দাবিপত্র সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের বাংলাদেশ ব্যাংক অফিসে পাঠাতে সব তফসিলী ব্যাংককে তাদের শাখাগুলোকে নির্দেশনা পাঠাতে বলা হয়েছে।

    প্রাইজবন্ড কিনুন, পুরুস্কার জীতুন এবং জীবনে প্রাচুর্য্য আনুন।

  2. 107 নম্বর ড্র নিচে তারিখে আছে 31 শে জানুয়ারি কেন

  3. 107 নম্বর ড্র নিচে তারিখে আছে 31 শে জানুয়ারি কেন

  4. প্রাইজবন্ডের 107 তম দ্র লিস্ট এ নিচে 31 শে জানুয়ারি কেন লেখা আছে

Leave a Comment